প্রথম পাতা , শীর্ষ খবর , ফরিদগঞ্জ , ব্রেকিং নিউজ

৪৭ বছর ধরে ভোটাধিকার প্রয়োগ করছে না ফরিদগঞ্জের রূপসার অধিকাংশ নারীরা

person access_time 6 months ago access_time Total : 120 Views

স্টাফ রিপোর্টার ঃ স্থানীয় এক পীরের নির্দেশে কখনওই নির্বাচনে ভোট দিতে পারেন না চাঁদপুরের রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের নারী ভোটাররা। প্রতিদিনের প্রয়োজনে ঘর থেকে বেরোলেও, ভোট কেন্দ্রে যান না তারা। ফলে জনপ্রতিনিধি নির্বাচনে কোনো ভূমিকা রাখতে পারেন না, এসব নারী ভোটার। দীর্ঘ প্রায় ৪৭ বছর ধরে ভোটাধিকার প্রয়োগ করছে না ফরিদগঞ্জের রূপসার অধিকাংশ নারীরা। লেখাপড়া, বাজারঘাট আর অন্যান্য দৈনন্দিন কাজে ঘরের বাইরে বেরোলেও, নির্বাচনের দিন ঘরে বসেই কাটে এসব নারীর। কখনওই ভোট দিতে যান না ভোটকেন্দ্রে। স্বাধীনতার পর থেকে স্থানীয় এক পীরের নির্দেশ মেনে ভোট দিতে যান না নারী ভোটাররা। এই দীর্ঘ সময়ে অনুষ্ঠিত স্থানীয় কিংবা জাতীয় কোন নির্বাচনেই তারা ভোট দেননি। নারী ভোটাররা জানান, ‘আমাদের এখানে মহিলাদের ভোট দেয়া নিষেধ। তাই তারা ভোট দিতে যায় না।’ আসন্ন নির্বাচনেও এই ইউনিয়নের নারীরা ভোট দিতে পারবেন কিনা তা নিয়েও সংশয় রয়েছেন এখানকার সাধারণ মানুষ। স্থানীয়রা জানান, ‘ওই পীর মহিলাদের নিষেধ করার পরে আর কেউ ভোট দেয় নাই এখন পর্যন্ত। তাই মহিলারা ভোট দিতে আসে না, আর স্থানীয় লোকজন তাদের বলেও না যে, তোমরা ভোট দাও। কয়েকবার চেষ্টা করা হলেও কোনও লাভ হয়নি, বরং দুর্ঘটনা ঘটেছে।’ তবে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি জানালেন, ‘পীরের নামে গুজব ছড়িয়ে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত রাখা হয়েছে এখানকার নারীদের।’ ফরিদগঞ্জ রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. ইসকান্দার আলী বলেন, ‘একটি গুজব উঠেছিল, তবে সমস্ত ব্যাপার সমাপ্ত হয়ে গেছে। এখন মহিলারা আসবে এবং ভোট দিবে।’ অন্যদিকে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারী ভোটারদের ভোট দিতে উদ্বুদ্ধ করা হবে বলে জানালেন, জেলা নির্বাচন কর্মাকর্তা হেলাল উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘এই নির্বাচনে নারী ভোটারসহ সকলে যাতে ভোট কেন্দ্রে যান, সেজন্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে এবং তার প্রতিনিধি হিসেবে রিটার্নিং অফিসার, সহকারি রিটার্নিং অফিসারসহ আমাদের উপজেলা নির্বাচন অফিসার এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবেন।’ রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়নে মোট ভোটার ২৪ হাজার ৪শ’ ৫৪ জন। এদের মধ্যে নারী ভোটার রয়েছে ১২ হাজার ১শ’ ১৪ জন।

শেয়ার করুনঃ
content_copyCategorized under