প্রথম পাতা , ব্রেকিং নিউজ , হাইমচর , জাতীয়

মেঘনায় নিখোঁজ কনস্টেবলের অপেক্ষায় নারী পুলিশ সদস্য স্ত্রী শামিমা

person access_time 4 months ago access_time Total : 112 Views

স্টাফ রিপোর্টার ঃ ছয় বছর আগে মোশারফ তার সহকর্মী পুলিশ সদস্য শামীমা আক্তারকে বিয়ে করে। উদ্দেশ্য ২জনে মিলে তাদের আয়ে সুখের সংসার গড়ে তুলবে। ঠিক তা-ই হলো চার বছর পর তাদের সংসারে আসলো এক ফুটফুটে পুত্র সন্তান । তাকে গিরেই গত দুই বছর স্বামী স্ত্রী দু’জনই চাঁদপুরের হাইমচর থানায় কমর্রত ছিলেন। কিন্তু এখন সব এলো মেলো হয়ে যাচ্ছে- বললেন,স্ত্রী শামীমা। মোশারফের বাড়ি চট্রগ্রামের সীতাকুন্ড উপজেলার বারবকুন্ড এলাকার মিজিপাড়ায়। বর্তমানে চঞ্চলতা আর দূরন্তপনায় মত্ত চার বছরে শিশু মাহির মোশারফ। এক মিনিট স্থির থাকার যেন ফুসরত নেই। অথচ শিশু মাহি জানে না তার বাবা পুলিশ সদস্য মোশারফ হোসেন আর ফিরবে কিনা? নারী পুলিশ স্ত্রী শামীমা বেগমও কাঁদছেন। আহাজারি আর বিলাপ করছেন। স্বামীর মৃতদেহ একবার দেখার সুযোগ পান কিনা সে নিয়েও রয়েছে তার শঙ্কা। ২৭ এপ্রিল শুক্রবার রাতে চাঁদপুরের হামইচরে পুলিশ ও জেলেদের সাথে সংঘষের্র ঘটনায় নিখোঁজ হন পুলিশ সদস্য মোশারফ হোসেন। রাত থেকেই ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল কোস্টগার্ড নদীতে তল্লাশী চালালেও এখনো খোঁজ মিলেনি। অবশ্য খোঁজ না মিলা পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানায় পুলিশ। মোশারফের স্ত্রী শামীমা আক্তার জানান, শুক্রবার রাত সাড়ে ৭টায় অভিযানে যোগ দিতে বাসা থেকে বের হন তিনি। তারপর রাত ২টার দিকে বাসায় খবর দেয়া হয় মোশারফকে পাওয়া যাচ্ছে না। হাইমচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মুহসিন আলম জানান, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলেও পুলিশ সদস্য মোশারফ নিখোঁজ হয়। তারপর ফায়ার সার্ভিস কোস্টগার্ডসহ নদীতে উদ্ধার অভিযান চালালেও এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মোশারফকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

content_copyCategorized under