প্রথম পাতা , ফরিদগঞ্জ , ব্রেকিং নিউজ

ফরিদগঞ্জে ধর্ষণের শিকার সপ্তম শ্রেণি ছাত্রী ॥ লম্পট মিজান গ্রেফতার

person access_time 4 months ago access_time Total : 86 Views

আবু হেনা মোস্তফা কামাল, ফরিদগঞ্জ ঃ ফরিদগঞ্জে ধর্ষণের শিকার সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ঢাকা থেকে উদ্ধার করেছে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ। এর আগে তাকে বেশ কয়েকদিন আটকে রাখে শিক্ষকরূপী এক লম্পট। উপজেলার বিষুরবন্দ গ্রামের লম্পটের নাম মিজানুর রহমান। গতকাল বুধবার বিকালে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে ওই লম্পটকে শ্রীঘরে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, ৬নং গুপ্টি ইউনিয়নের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী পরি (ছদ্ম নাম)কে প্রাইভেট পড়াতেন মিজানুর রহমান (৪৫)। এরই ফাঁকে মনে মনে ফন্দি আঁটেন মিজানুর রহমান। সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা নিয়ে পড়ানোর ফাঁকে অবুঝ ছাত্রীর সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তোলেন তিনি। নানা সময়ে, নানা গল্প করতেন। যথারীতি ২৪-এ জুলাই বিকালে ক্লাস শেষে স্কুল থেকে বাড়ি ফিরছিলেন ছাত্রী। পথিমধ্যে ছাত্রীকে ফুসলিয়ে সঙ্গে নিয়ে গাড়িতে উঠেন মিজান। ছাত্রীকে নানা গল্পের ছলে নিয়ে যান ঢাকার মাতুয়াইল। সেখানে একটি বাসা ভাড়া নেন তিনি। সে বাসায় রেখে নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে অবুঝ শিশুকে দিনের পর দিন ধর্ষণ করেছেন মিজান। এতে, অসুস্থ হয়ে পড়েন ওই ছাত্রী। তারপরও দমেননি মিজানুর রহমান। এদিকে, স্কুল থেকে সময় মতো বাড়ি না ফেরায় সন্তানকে খুঁজতে থাকেন বাবা-মা। কিন্তু, কোথাও খুঁজে পাচ্ছিলেন না আদরের শিশু কন্যাকে। এক পর্যায়ে সন্দেহের তীর যায় মিজানুর রহমান-এর ওপর। অবশেষে, শিশুর বাবা বাদী হয়ে গত ৬ই আগস্ট ২০০০ সনের নারী ও শিশু নির্যাতনের দমন আইন (সংশোধনী/০৩)-এ মামলা (নং ১৩, তারিখ: ০৬-০৮-২০১৯, ধারা: ৭/৩০) দায়ের করেন ফরিদগঞ্জ থানায়। মামলা পেয়ে থানার অফিসার ইন-চার্জ আব্দুর রকিব সক্রিয় হয়ে ওঠেন। তার নেতৃত্বে থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক লম্পট মিজানুর রহমান-এর পেছনে পাত্তা লাগান। সর্বোচ্চ আন্তরিকতার ফল স্বরূপ খুব দ্রুতই মিজান-এর অবস্থান নির্দিষ্ট করতে সক্ষম হন পুলিশ। লম্পট মিজানকে আটক ও শিশুকে উদ্ধারের উদ্দেশ্যে শুরু হয় ঢাকার যাত্রবাড়ির অদূরে মাতুয়াইলের উদ্দেশ্যে একদল পুলিশের অভিযান। এস.আই. সুমন্ত মজুমদার-এর নেতৃত্বে ভোর-রাত আনুমানিক চারটায় মিজানুর রহমান-এর অবস্থানকৃত বাসা ঘিরে ফেলে পুলিশ। এরপর ওই ঘর থেকে মিজানুর রহমান গ্রেফতার ও নির্যাতনের শিকার শিশুকে উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধারের সময় শিশুর শারিরীক অবস্থা অত্যন্ত নাজুক ছিলো বলে জানান অফিসার ইন-চার্জ আব্দুর রকিব। দৈনিক চাঁদপুর দর্পণকে তিনি বলেছেন, ঘটনা পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে যাবতীয় কার্য সম্পাদন করা হবে।

content_copyCategorized under