প্রথম পাতা , শীর্ষ খবর , ফরিদগঞ্জ , ব্রেকিং নিউজ

ফরিদগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যান হারুনকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা

person access_time 2 months ago access_time Total : 178 Views

আবু হেনা মোস্তফা কামাল, ফরিদগঞ্জ: ফরিদগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানকে হত্যা চেষ্টা, হামলা ভাংচুরের অভিযোগে মামলা দায়ের হয়েছে। এতে খাজে আহম্মদ মজুমদার, আবু সুফিয়ান, হেলাল উদ্দিন আহমেদসহ ১০ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ২০ থেকে ২৫ জনকে বিবাদী করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি। আহত চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদের ছোট ভাই জাহিদুল ইসলাম ঝুটন বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেছেন। এলাকায় পুলিশ টহল জোরদার করা হয়েছে।
মামলার বাদী জাহিদুল ইসলাম ঝুটন অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, তার ভাই হারুনুর রশিদ ২নং বালিথুবা (পূর্ব) ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান। বৃহস্পতিবার (১৩ই ফেব্রুয়ারী) ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদে সমন্বয় কমিটি ও আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভা শেষে নিজ এলাকায় ফিরছিলেন। পথিমধ্যে, ফরিদগঞ্জ বাজারে অবস্থিত মার্কেন্টাইল ব্যাংক-এর সামনে পৌঁছলে, বেআইনি জনতা দলবদ্ধ হয়ে ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে তার ওপর হামলা করে। এতে, চেয়ারম্যান হারুন গুরুতর জখম হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এ ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে শুক্রবার সকালে ফরিদগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এতে, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক হেলাল উদ্দিন (১নং), ছাত্রলীগ যুবলীগ উপজেলা আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান (২নং),আলাউদ্দিন (৩নং), আব্দুল আজিজ (৪নং), খাজে আহম্মদ মজুমদারকে (৫নং), জাহাঙ্গীর আলম (৬নং), এস.এম. টেলু (৭নং) অপু শেখ (৮নং)সহ ১০ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাত আরও ২০ থেকে ২৫ জনকে বিবাদী করা হয়েছে। মামলা নং ১৭, তারিখ: ১৪ই ফেব্রুয়ারি ২০২০ খ্রিঃ। ধারা: ১৪৩, ৩৪১, ৩২৩, ৩২৪, ৩২৬, ৩০৭, ৩৭৯ ও ৪২৭। মামলায় দোকানপাট ও যানবাহন ভাংচুরের অভিযোগও আনা হয়েছে।
সূত্র জানিয়েছে, গুরুতর আহত কৃষকলীগ চাঁদপুর জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বালিথুবা পূর্ব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদকে বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার বাম হাতের তিনটি আঙুল বিচ্ছিন্ন প্রায়। তার শরীরের বিভিন্নস্থানে গুরুতর আঘাত রয়েছে। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদিকে, চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদের সঙ্গে আহত যুবলীগ নেতা মহসিন তপাদার চাঁদপুর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট্য হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
পুনরায় হামলা ও সংঘর্ষের আশংকা করছিলেন এলাকাবাসী। এতে, শুক্রবার সকাল হতে সন্ধ্যা পর্যন্ত ফরিদগঞ্জ বাজার ও বাসস্ট্যান্ডে পুলিশ মোতায়েন ছিলো।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস.আই. আব্দুল আওয়াল শুক্রবার রাতে জানিয়েছেন এখনও কাউকে আটক করা যায়নি। তবে, বিবাদীদের গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় নেয়ার জোর প্রচেষ্টা চলছে।
ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রকিব জানিয়েছেন, হারুনুর রশিদের ছোট ভাই ১০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ২০ থেকে ২৫ জনের নামে হত্যা চেষ্টার একটি অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ মোতাবেক মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। মামলার তদন্ত এবং আইনগত ব্যবস্থা নিতে এসআই আব্দুল আওয়ালকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

content_copyCategorized under