শেষ পাতা , ফরিদগঞ্জ , ব্রেকিং নিউজ

জমি জমার ভোগ দখলকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় মারামারি

person access_time 3 months ago access_time Total : 132 Views

ফরিদগঞ্জ অফিস: জমি জমার ভোগ দখলকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় চলছে মারামারি। হচ্ছে জখম, ঝরছে রক্ত। থানা পুলিশের নিকট অভিযোগ দিয়েও কার্যত শান্তির সুবাতাস এখনও দেখা যাচ্ছে না। উপজেলার ১০ নং গোবিন্দপুর (দঃ) ইউনিয়নরে দক্ষিণ হাঁসা গ্রামের শেখ বাড়িতে এমন অবস্থা চলছে গত প্রায় বছরাধিককাল। জনপ্রতিনিধিগণ মিমাংশা করার কথা বললেও, কোনো ফল পাওয় যায়িনি। অভিযোগে জানা গেছে, বাড়ির আব্দুস সাত্তার (৬৫) এর বসত বাড়ি ঘিরে প্রচুর জমির মালিক প্রতিবেশী চুন্নু মিয়া (৫৮)। ফলে চুন্নু মিয়ার অনুমতি ব্যতিরেকে, সাত্তার মিয়া ও তার পরিবারের লোকজন বাড়িতে থেকে বের হওয়াই যেনো প্রায় অসম্ভব। পুত্রবধু রেহানা বেগমের দাবী, গত কয়েকদিন পূর্বে সাত্তার মিয়ার ছয় বছরের নাতি জিহাদ, চুন্নু মিয়ার মালিকানাধীন পাশের ডোবায় নামে। এতে চুন্নু মিয়া ক্ষিপ্ত হয়ে শিশুকে মারধর করে। এতে দু’ পক্ষের মধ্যে মারামারি বেধে যায়। সেখানে সাত্তার মিয়া আহত হন। আত্মীয় স্বজন তাকে প্রথমে ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান, পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। গতকাল বিকালে রেহানা বেগম দাবী করেন, চুন্নু মিয়া ও তার দলবল এখন তাদের হুমকি ধমকি দিচ্ছে। তাদের উপর পুনরায় হামলা হতে পারে বলে তিনি আশংকা প্রকাশ করেছেন। এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, তার শ্বশুর চট্টগ্রামে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি চুন্নু মিয়া ও তার দলবলের হাত থেকে বাঁচতে চান এবং আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর আইনী সহায়তা প্রত্যাশা করেন।
এদিকে, চুন্নু মিয়ার সাক্ষাৎ পাওয়া যায়নি। তবে চুন্নু মিয়ার ছেলে মানিক এর স্ত্রী বলেন, সাত্তার মিয়ার ঘরের পাশে আমাদের অনেক জমি। আমরা একটু দূরে থাকি। এ সুযোগে আমাদের জমি ও ফসলাদি তসরুফ করে। তিনি বিভিন্ন সময় দু’ পক্ষের মধ্যে ঝগড়া ও মারামারি হওয়ার কথা স্বীকার করেন। গত ১৬ তারিখে তার শ্বশুরও আহত হয়েছেন বলে, তিনি দাবী করেন। এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, মারামারির দু’ দিন পর আমার শ্বশুর অসুস্থবোধ বরেন। এরপর তাকে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যপারে ফরিদগঞ্জ থানার এসআই জহির জানান, এমন একটি অযিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।

content_copyCategorized under