প্রথম পাতা , চাঁদপুর সদর , শীর্ষ খবর , ব্রেকিং নিউজ , জাতীয়

চাঁদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মামা-ভাগ্নি নিহত ॥ সড়ক অবরোধ

person access_time 2 months ago access_time Total : 64 Views

স্টাফ রিপোর্টার ঃ চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের ঘোষেরহাট এলাকায় পদ্মা এক্সপ্রেস বাস ও সিএনজি অটো রিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে মামা এমরান হোসেন ও ভাগ্নি ফাতেমা বেগম নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো তিনজন। তাদের চাঁদপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়ক উত্তেজিত জনতা দেড় ঘন্টা অবরোধ করে রাখে। খবর পেয়ে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান হাসপাতালে ছুটে গিয়ে আহতদের খোঁজ খবর নেন এবং শিশু ফাতেমার উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা প্রেরণে ব্যবস্থা নিয়ে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে যায় এবং যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক করে। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরাও ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশে হস্তান্তর করে। নিহত এমরান হোসেন (৩৪) ফাস্ট সিকিউরিটি ব্যাংক ঢাকা প্রধান কার্যালয়ের সহকারি একাউন্টস অফিসার। এমরান হোসেন ঈদের ছুটি শেষে মঙ্গলবার সকালে কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে লঞ্চে যাবার জন্য

সিএনজি অটোরিক্সা যোগে লঞ্চঘাটে যাবার পথে সড়ক দুর্ঘনায় সে মারা যায়। এতে আহত হয় শিশুসহ আরো ৪ যাত্রী। আহত শিশুর পরিচয় মিললেও বাকীদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। গুরুতর আহত ফাতেমা আক্তারকে (১২) ঢাকা পাঠানো হলে পথিমধ্যে সেও মারা যায়।
প্রত্যক্ষদর্শী মোখলেছুর রহমান জানান, চাঁদপুর-কুমিল্লা সড়কের ঘোষেরহাট বটতলা এলাকা পদ্মা এক্সপ্রেস যাত্রীবাহী বাস দ্রুত চালিয়ে ঢাকা যাচ্ছিল। আর সিএনজি অটোরিক্সাটি হাজীগঞ্জ থেকে আসছিল। ঘটনাস্থলে বাসটি রং সাইডে আসলে সিএনজি অটোরিক্সা মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই এমরান হোসেন নামে এক যাত্রী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে শিশুসহ আরো ৪ যাত্রী। আহতদের আমি অন্য সিএজি অটোরিক্সায় চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে আসি। চাঁদপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক ফরিদ আহমেদ জানান, আনুমানিক সাড়ে ৬টায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে আমরা এ্যাম্বুলেন্সসহ ৩টি গাড়ী নিয়ে দর্ঘটনাস্থলে আসি। পরে নিহতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশের কাছে হস্থান্তর করি। চাঁদপুর মডেল থানার এসআই রেজাউল করিম জানান, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৬টায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। এ সময় উত্তেজিত জনতা চাঁদপুর-কুমিল্লা সড়ক অবরোধ করে রাখে। আমরা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। যানবাহন চলাচলে ব্যবস্থা করি। লাশ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। নিহত এমরানের পিতা তাজুল ইসলাম জানান, এমরান তার বড় ছেলে। সে ফাস্ট সিকিউরিটি ব্যাংক ঢাকা প্রধান কার্যালয়ের সহকারি একাউন্টস অফিসার। ঈদ করতে বাড়ী এসেছিল। ঢাকা যাবার পথে এ দুর্ঘটনাটি হয়। তার মেয়ে আছে। বয়স ১মাস ১০দিন। তাদের বাড়ী চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ বলাখাল সর্দার বাড়ী। রাতে পারিবারিক কবরস্থানে তাদের দাফন করা হয়।

content_copyCategorized under