শেষ পাতা , ফরিদগঞ্জ , ব্রেকিং নিউজ

চমকের পর চমক ফরিদগঞ্জ নির্বাচনী আসনে

person access_time 3 weeks ago access_time Total : 25 Views

নূরুল ইসলাম ফরহাদ :
চাঁদপুর ৪ ফরিদগঞ্জ নির্বাচনী আসনে যেন চমকের শেষ হবে না। ধারাবাহিক এই চমকের শেষ দৃশ্য দেখতে হয়তো নির্বাচনের রাত পর্যন্তও অপেক্ষা করতে হতে পারে। ২৮ নভেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিলের দিন থেকে চমকের খেলা শুরু হয়। প্রার্থী পরিবর্তনের এতো রঙ বদলের খেলা অতিতে ফরিদগঞ্জবাসী দেখেনি। এ খেলা ক্ষমতাশীন দল এবং মাঠের বিরোধী দল উভয় শিবিরের মধ্যেই ঘটেছে।
মনোনয়নপত্র দাখিল, বাছাই, প্রত্যাহার এবং কোর্ট পর্ব শেষ হলেও শেষ হয়নি প্রার্থী বদলের চমক। সবার আগে ক্ষমতাশীন দল আওয়ামীলীগ তাদের প্রার্থী ঘোষনা করে। প্রথমেই দলটি বর্তমান সংসদ সদস্য নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা দেন ড.মোহাম্মদ শামছুল হক ভূঁইয়াকে। ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভূঁইয়াই আওয়ামীলীগের চূড়ান্ত প্রার্থী, এটাই উপজেলাবাসীর ধারনা ছিলো। যদিও শেষ পর্যন্ত তিনি তার প্রার্থীতা ধরে রাখতে পারলেন না। শেষ পর্যন্ত সবাইকে অবাক করে দিয়ে নৌকা নিয়ে হাজির হলেন বিগত দুই সংসদ নির্বাচনে আ’লীগের হয়ে প্রতিদ্বন্দি¦তা করা জাতীয় প্রেসক্লাব এর সাবেক সভাপতি শফিকুর রহমান।
এদিকে বহু নাটকীয়তার পর শেষ পর্যন্ত ধানের শীষ প্রতীক পেলেন সাবেক সংসদ সদস্য লায়ন হারুনুর রশিদ। ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত মাঠ পর্যায়ের সকল নেতা কর্মীর ধারণা ছিলো সাবেক সংসদ সদস্য লায়ন হারুনুর রশিদ অথবা মোতাহার হোসেন পাটওয়ারী বিএনপির মনোনয়ন পাবেন। এম এ হান্নানের নাম আলোচনায় সেভাবে আসেনি কারণ তিনি দল থেকে বহিস্কৃত ছিলেন। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে ধানের শীষ নিয়ে হাজির হলেন এম এ হান্নান। এটাই ছিলো চাঁদপুর জেলার সেরা চমক। উপজেলাবাসী বিস্মিত হলেন এ কারণে যে বিএনপির ২য় এবং ৩য় নম্বর পছন্দের তালিকায়ও স্থান পাননি বিএনপির কঠিন মহুর্তের এমপি হারুনুর রশিদ এবং দীর্ঘ দশ বছর ধরে বিএনপির সুখে দুঃখে পাশে থাকা ও ফরিদগঞ্জে বিএনপির প্রতিষ্ঠা পরিবারের সদস্য মোতাহার হোসেন পাটওয়ারীকে না দেখে। সাধারণ ভোটার থেকে তৃণমূল নেতাকর্মীদের চোখ কপালে উঠেছে ২য় এবং ৩য় নম্বর প্রার্থী দেখে। নসু এবং রফিককে সাধারণ ভোটারতো দূরের কথা উপজেলা নেতৃবৃন্দদের কাছেও তারা অপরিচিত। এরই মাঝে উপজেলা ছাত্রদল এবং উপজেলা যুবদলের কমিটি স্থগিতের ঘোষনায় হতবিহব্বল হয়ে পড়ে বিএনপি। নেতাকর্মীদের কানাঘুষা হান্নান সাহেব মোতাহার এবং হারুনের অনুসারিদের রাখতে চান না। এ আলোচনা শেষ হতে না হতেই হঠাৎ একদিন ঘোষনা আসলো মহামান্য আদালত আব্দুল হান্নান এর মনোনয়নপত্র ঋণ খেলাপির কারনে স্থগিত করেছেন। বিএনপির প্রার্থী শূণ্যতার খবর শুনে উপজেলা বিএনপির মাঝে একরাশ হতাশা নেমে আসে। এ যখন অবস্থা, ঠিক সে মহুর্তে সর্বশেষ চমকটি দেখালেন লায়ন হারুনুর রশিদ। বুধবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানাযায় আদালতের আদেশেই তিনি বিএনপির প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। দেখা যাক ধারাবাহিক এ চমকের শেষ কোথায়?

শেয়ার করুনঃ
content_copyCategorized under