প্রথম পাতা , শীর্ষ খবর , ব্রেকিং নিউজ , কচুয়া

কচুয়ায় প্রবাসীর স্ত্রী নিখোঁজ ॥ কক্ষে চোপ চোপ রক্ত

person access_time 6 months ago access_time Total : 109 Views

আবুল হোসেন, কচুয়া ঃ কচুয়া উপজেলার প্রবাসীর স্ত্রী মনি বেগম (২৫) নিখোঁজ। তার শয়ন কক্ষের মেঝে ও টয়লেটে চোপ চোপ রক্ত। মনি বেগম কচুয়া উপজেলার দারাশাহী-তুলপাই মোল্লা বাড়ির প্রবাসী জামাল হোসেনের স্ত্রী। সে কচুয়া পৌরবাজারের পলাশপুরে সিএনজি স্টেশন সংলগ্ন একটি ভাড়া বাড়িতে একা বসবাস করে আসে। কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ওয়ালী উল্যাহ জানান, ৭ সেপ্টেম্বর শনিবার রাতের কোন এক সময়ে মনি বেগম নিখোঁজ হয়। তার নিকট আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ পেয়ে পুলিশ মনির বেগমের ভাড়াটিয়া বাসায় গিয়ে দেখতে পায়, মনি বেগমের শয়ন কক্ষের মেঝে ও টয়লেটে চোপ চোপ রক্ত পড়ে আছে। হাড়ি-পাতিল এবং পেঁয়াজ, রসুনের ঝুড়ি এলোমেলো পড়ে আছে। এ ব্যাপারে কচুয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি এন্ট্রির প্রস্তুতি চলছে। ঘটনার রহস্য উদঘাটনে পুলিশের জোর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। মনি বেগমের বড় বোন মায়া আক্তার ও আমেনা বেগম জানান, মনি ৮ মাসের গর্ভবতী। শনিবার রাত ১টার দিকে মনির স্বামী বিদেশ থেকে ফোন করে মনি অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে বলে জানায়। তাই তাকে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসার কথা বলে। ফোন পেয়ে তারা মনি বেগমের সাথে রাতেই যোগাযোগ করলে মনি বেগম এখন কিছুটা সুস্থ্য আছে দাবী করে তাদেরকে সকালে আসতে বলে। গতকাল রবিবার সকাল ৯টার দিকে এসে তারা মনির বাসার দরজার বাহিরের দিক থেকে ছিটকারি লাগানো দেখতে পায়। দরজা খুলে কক্ষে প্রবেশ করে দেখে মনি বেগম কক্ষে নেই, চোপ চোপ রক্ত পড়ে আছে মেঝে ও টয়লেটে। মায়া আক্তার ও আমেনা বেগম আরো জানান, তাদের গ্রামের বাড়ি কচুয়া উপজেলার ফতেপুর গ্রামে। প্রায় ৮ বছর পূর্বে দারাশাহী-তুলপাইয়ের জামাল হোসেনের সাথে মনি বেগমের বিয়ে হয়। মনির বেগমের কোন সন্তানাদি হচ্ছেনা বিধায় এক কবিরাজ তাদেরকে পরামর্শ দেন মনি বেগম স্বামীর বাড়ি ত্যাগ করে অন্য কোথাও গিয়ে বসবাস করলে তার সন্তান হবে। ওই কবিরাজের পরামর্শে প্রায় এক বছর যাবৎ মনি বেগম স্বামীর বাড়ি ছেড়ে পলাশপুরের ভাড়াটিয়া বাড়িতে বসবাস শুরু করে। এ বাড়িতে আসার পরই মনি বেগম গর্ভবতী হয়।

content_copyCategorized under